“বাহাউল্লাহ নির্দেশ দিয়েছেন যে, উপাসনার জন্য একটি স্থান নির্মান করা হবে সকল ধর্মাবলম্বীদের জন্য, যাতে সকল ধর্মসমূহ, জাতিসমূহ, ধর্মীয় গোষ্টী এর সর্বজনীন আশ্রয়ে একত্রিত হতে পারেন, যাতে মানুষের ঘোষণা পবিত্রতার মুক্ত প্রাঙ্গনসমূহ থেকে সামনের দিকে এগিয়ে যেতে পারে।”



- আবদুল-বাহা

বাহাইদের জন্য, ভক্তিমূলক জীবন, প্রার্থনার জন্য এবং ধ্যানের জন্য সময় ব্যয় করা শুধুমাত্র ব্যক্তিগত সুখের জন্য প্রবৃত্ত হওয়া নয়; এটি ব্যক্তি এবং সমাজকে উদ্দীপিত করার জন্য কাজ করে, তাদের আধ্যাত্মিক জীবনীশক্তিসমূহ শুরু করে দেয় যা পৃথিবীকে আরও ভালো করে।

উপাসনা এবং সেবার যোগাযোগের দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে, প্রার্থনাগুলি ক্রিয়াশীলতাসমূহে প্রকাশ লাভ করে এবং ক্রিয়াশীলতাসমূহ আধ্যাত্মিকতায় সঞ্চারিত হয়। তখন একটি ব্যবহারিক পদক্ষেপে আধ্যাত্মিক পথ পদদলন করা সম্ভব হয়। সমাজ জীবনের একটি আকার ভারতব্যাপী গ্রাম এবং প্রতিবেশী অঞ্চলসমূহে উদ্ভাবিত হয় যেখানে উপাসনা এবং সেবার এইসব বৈশিষ্ঠ্যগুলি নিবিড় সম্পর্ক যুক্ত হয়।

নতুন দিল্লিতে বাহাই উপাসনালয়, যা লোটাস টেম্পল নামে পরিচিত, বাহাই জীবনের এইসব দুটি বিষয়সমূহকে একত্রিত করে – উপাসনা এবং সেবা। উপাসনা ভবনটিতে একটি কেন্দ্রীয় প্রার্থনা সভাঘর রয়েছে, সঙ্গে রয়েছে ৯টি প্রবেশ দ্বার, যা ধর্মের একত্বের প্রতীকী রূপ দান করে এবং ঈশ্বরের বার্তাবাহকদের অথবা অবতারদের শিক্ষাগুলি সবই অবশেষে একটি বাস্তবতার পথ দেখায়। উপাসনালয়টি উদ্যান দিয়ে ঘেরা যা দর্শকদের আধ্যাত্মিকভাবে তাদের ভক্তিতে সাহায্য করে। এটা কল্পনা করা হয় যে, উপাসনালয়ের সঙ্গে থাকা পারিপার্শ্বে নির্ভরতাগুলির সংখ্যা তৈরী হবে যা জনগণের জাগতিক এবং শিক্ষাগত প্রয়োজনগুলির কাজে লাগবে। মন্দিরে চলতে থাকা প্রার্থনা এবং ধ্যানে যে মানসিকতা তৈরি হয় তা দিল্লি এনসিআর এবং সন্নিহিত অঞ্চলগুলিতে বেশী আকারে সমাজ গঠণ ক্রিয়া কর্মসমূহকে পথ করে দেয়।

 
Scroll Up