“তোমরা যে যুগে বাস করছো তার প্রয়োজনগুলির জন্য উদ্বিগ্ন চিত্তে সংশ্লিষ্ট থাকো, এবং তোমাদের সুবিবেচনাগুলি তার জরুরী প্রয়োজনগুলির প্রতি কেন্দ্রীভূত রাখো।”



বাহাউল্লাহ

সামাজিক অস্তিত্বের অনেক বিষয়গুলির মধ্যে যাকে রূপান্তরিত করার প্রয়োজন হবে, যখন মানব সম্প্রদায় যুগের আগমনের নিকটবর্তী হয়, যেমন দৃষ্টিভঙ্গি, চিন্তাভাবনা এবং প্রাথমিক বিষয়গুলির ধারণা যা মানবসম্প্রদায়ের সামনে দাঁড়িয়ে আছে। চিন্তার স্তরে রূপান্তরের এই প্রক্রিয়ায় অবদান রেখে এইভাবে উদ্বেগের এবং শিক্ষার অন্যতম ক্ষেত্রসমূহ বিশ্বব্যাপী বাহাই সমাজের জন্য। বাহাই সমাজগুলি মানবসম্প্রদায়ের কল্যান সম্পর্কিত অনেক ব্যাখ্যানে অংশগ্রহণ করতে শিখছে যেমন নারী-পুরুষের সমতা, শান্তি, শাসন, সর্বজনীন স্বাস্থ্য এবং উন্নয়ন।

এইসব ব্যাখ্যানগুলিতে অংশগ্রহণের উদ্দেশ্য অন্যদের এই বিষয়ে বাহাই অবস্থান গ্রহণ করার জন্য অন্যদের বিশ্বাস জাগানো নয়। না প্রচেষ্টার এই ক্ষেত্র একটি জনসংযোগ বিষয়ক ক্রিয়াকলাপের পশ্চাদ্ধাবন অথবা শিক্ষা বিষয়ক প্রয়াস। বরং, বাহাইগণ শিক্ষাগ্রহণের একটি মনোভঙ্গি গ্রহণ করার প্রচেষ্টা এবং অকৃত্রিম আলাপচারিতা। সঠিক অর্থে, তারা মানব সম্প্রদায়ের সামনে আসা সমস্যাগুলির কোনও নির্দিষ্ট সমাধানসমূহ শুরু করতে চায় না যেমন, আবহাওয়ার পরিবর্তন, নারী স্বাস্থ্য, খাদ্য উৎপাদন এবং দারিদ্র্য লাঘব করা। তবুও বাহাইগণ, বিশ্বব্যাপী ব্যবস্থার অভিমূখে তাদের প্রচেষ্টায় অর্জন করা শিক্ষা গ্রহণের মাধ্যমে বাহাউল্লাহর শিক্ষাবলী সভ্যতার অগ্রগতির জন্য প্রয়োগ করতে চান এবং অন্যান্য সমভাবাপন্ন ব্যক্তিসমূহ ও গ্রুপের থেকে শিক্ষা নিতে চান।

ভারতের বাহাইগণ সমাজের নারী-পুরুষের সমতায়, আর্থ-সামাজিক উন্নতি, সমাজে ধর্মের ভূমিকা, শিশু ও যুবদের অধিকারগুলি এবং সামাজিক রূপান্তর ব্যাখ্যান বিষয়ে অংশগ্রহণের সমৃদ্ধ ইতিহাস আছে।

Scroll Up