“সকল অন্তর্দৃষ্টিসম্পন্ন এবং উপলব্ধির মানুষের ওপর এটা অবশ্য পালনীয় রূপান্তর করার কঠোর প্রচেষ্টা যা বাস্তব এবং কর্মতৎপরতায় লেখা হয়েছে...একজন প্রকৃতই মানুষ, যে আজকে, নিজেকে সমগ্র মানবসম্প্রদায়ের কাজে উৎসর্গ করেছে।”



বাহাউল্লাহ

যখন একটি সন্নিহিত অঞ্চলে অথবা গ্রামে সমাজ গঠণ প্রক্রিয়া তীব্র হয়, বিজড়িত বন্ধুরা জনগণের সামনে আসা সামাজিক এবং জাগতিক দুর্ভাবনাগুলিকে বেশী করে টেনে নিয়ে যায়। তারা বাহাই ধর্মের আধ্যাত্মিক শিক্ষাগুলিতে নির্দিষ্ট অন্তর্দৃষ্টি এবং মূলনীতিগুলি খুঁজে পান যা তারা তাদের সামনে আসা বিষয়গুলি যেমন নারী ও পুরুষের মধ্যে সমানাধিকার, পরিবেশ, স্বাস্থ্য, কৃষি এবং শিক্ষা ইত্যাদি ক্ষেত্রগুলিতে প্রয়োগ করতে চান। একবার যখন এইরকম বিষয়গুলিতে সচেতনতা গড়ে তোলা যায়, স্টাডি সার্কেলে যোগদানের মাধ্যমে একই দৃষ্টিভঙ্গির যেসব বন্ধুদের গ্রুপগুলি তৈরি হয়, কিশোর-কিশোরী গ্রুপগুলি এবং যৌথ উপাসনা তাদের সমাজের মঙ্গলের জন্য কার্যভার গ্রহণ করে। নিয়মমাফিক প্রচেষ্টাগুলি এবং সহায়তা পরিকল্পনাগুলির নিরবিচ্ছিন্ন প্রচেষ্টাগুলি যেমন গৃহশিক্ষকতা ক্লাসগুলি এবং সমাজ স্কুলগুলি কখনও উন্মোচিত হয়। এরমধ্যে কিছু পরবর্তীকালে আরও বৈধ রূপ গ্রহণ করে যখন তা বহু অংশ সম্বন্ধিত প্রতিষ্ঠান এবং বড় মাপের শিক্ষণ স্কুলগুলিতে পরিণত হয়েছে।

যদিও প্রচেষ্টার বিভিন্ন ক্ষেত্রগুলিতে এবং জটিলতার মাপকাঠিতে এটি বিভিন্ন ধরণের, এইরকম সামাজিক কর্মতৎপরতার প্রচেষ্টাগুলিতে যাতে মিল রয়েছে তা হলো মানবজাতিকে আধ্যাত্মিকভাবে এবং জাগতিকভাবে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার দৃষ্টিভঙ্গি, মানবজাতির একত্বের একটি বিশ্বাস এবং ন্যায়পরতার মূলনীতি, সকল মানুষের শিক্ষার উন্নতিতে এবং প্রয়োগে অংশগ্রহণ, তাদের নিজের সমাজের উন্নতির জন্য, পরামর্শের আবর্তনের মাধ্যমে, অধ্যয়ণ, কর্মতৎপরতা এবং প্রতিফলনের একটি দৃষ্টিভঙ্গী।

Scroll Up